সেকশন

সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
Independent Television
ad
ad
 

রোগীর মৃত্যুর দায় কার? স্বজনদের ধাক্কাধাক্কির, লিফটের নাকি হাসপাতালের?

আপডেট : ১৫ মে ২০২৪, ১১:০১ এএম

এ দেশে দোষের ভাগীদার কেউই হয় না। এমনকি নিজের কাঁধে দোষ চাপলেও তা অন্যের ঘাড়ে জোর করে চাপিয়ে দেওয়ার একটা চল চালু হয়ে গেছে। আর তা চাপানোর জন্য যদি সাধারণ মানুষের ঘাড় মেলে, তাহলে তো কথাই নেই! ঠিক তেমনই একটি ঘটনার উৎকৃষ্ট উদাহরণ এবার পাওয়া গেল গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। লিফটে আটকে যারা ছিল, তাদের ধাক্কাধাক্কিকে আসামি বানিয়ে ফেলা হলো! নিন, এবার ঠ্যালা বুঝুন।

ঘটনার বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক। সংবাদমাধ্যমের খবরে প্রকাশ, গত ১২ মে রোববার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের লিফটে আটকে থেকে মমতাজ বেগম নামে এক রোগী মারা যান বলে অভিযোগ ওঠে। মেডিসিন বিভাগ থেকে কার্ডিওলজি বিভাগের সিসিইউতে স্থানান্তরের সময় লিফটে তিনি ৪৫ মিনিট আটকে ছিলেন বলে অভিযোগ করেন মমতাজ বেগমের মেয়ে শারমিন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লিফট আটকে থাকার তথ্য নিশ্চিত করলেও রোগী কী কারণে মারা গেছে, তা জানতে তদন্ত কমিটি গঠনের কথা জানিয়েছে।

শারমিনের দাবি অনুযায়ী, লিফটে থাকা মোবাইল নম্বর নিয়ে তিনজন লিফটম্যানকে কল দেওয়া হলেও, তারা গাফিলতি করে, ফোনে খারাপ ব্যবহারও করে। পরে ৯৯৯-এ কল দিলে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা এসে তাঁদের উদ্ধার করে।

মৃত মমতাজ বেগমের স্বজনদের অভিযোগ, প্রায় ৪৫ মিনিট তাঁরা লিফটে আটকে ছিলেন। লিফটম্যানদের গাফিলতির কারণেই মমতাজের মৃত্যু হয়েছে বলে তাঁরা মনে করেন। আরেকটি বিষয় নিয়ে তাঁরা প্রশ্ন তুলেছেন, সেটি হলো কর্তৃপক্ষের দায়িত্ববোধ।

এ ধরনের অভিযোগের বিপরীতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অবশ্য লিফট আটকে থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেনি। তবে সেটিই মৃত্যুর কারণ কিনা, তা বুঝতে স্বাভাবিকভাবেই তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। সরকারি কার্যকলাপের ক্ষেত্রে কিছু নির্দিষ্ট প্রটোকল থাকেই। সঠিক তদন্ত ব্যতিরেকে কিছু বলাও ভুল। সুতরাং এই প্রক্রিয়া অনুসরণ করা যেতেই পারে। যদিও হাসপাতালের উপপরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম সংবাদমাধ্যমের কাছে স্বীকার করে নিয়েছেন যে, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ‘দীর্ঘ সময়’ লিফটটি আটকে ছিল। পরে লিফটম্যান ও ফায়ার সার্ভিসের লোক এসে সবাইকে উদ্ধার করে। লিফটে আটকে থাকা সবাই সুস্থ ছিল, কিন্তু মমতাজ বেগম মারা গেছেন। তিনি পুরো বিষয়টি তদন্ত করে দেখার আশ্বাসও দেন।

অর্থাৎ, ৪৫ মিনিট লিফটে আটকে থাকার দাবিটি একেবারে মিছে নয়। কিন্তু এই ঘটনা ঘটার পরদিনই সরকারি চিঠিতে এমন একটি কারণ উল্লেখ করা হলো, যাতে পুরো বিষয়টিই উল্টে গেল। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে ঘটনার বিস্তারিত জানিয়ে দেওয়া এক চিঠিতে দাবি করা হয়েছে, হাসপাতালের লিফট আটকে ছিল রোগীর স্বজনদের ধাক্কাধাক্কিতে। আরও দাবি যে, ৪৫ মিনিট নয়, লিফটটি আটকে ছিল ১০ থেকে ১৫ মিনিট।

ঘটনার ব্যাখ্যা দিয়ে লেখা চিঠিটি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবরে পাঠানো হয়েছে। হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. মো. জাহাঙ্গীর আলম ও গণপূর্ত ই/এম বিভাগ-১০, ঢাকার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আব্দুল হালিম স্বাক্ষরিত চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, প্রাথমিকভাবে লিফটটি বিদ্যুৎ বিভ্রাটের জন্য আটকে গেলে লিফটির স্বয়ংক্রিয় রেসকিউ ডিভাইস (এআরডি) কাজ করার জন্য এক মিনিট সময়ের প্রয়োজন হয়। কিন্তু লিফটে আটকে পড়া রোগীসহ লোকজন দরজা ধাক্কাধাক্কি করায় লিফটের ডোর সেফটি কাজ করেনি।

লিফটে আটকে পড়ার অভিজ্ঞতা অনেকরই আছে। এ সময় দমবন্ধ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় অবশ্যই। তাতে লিফটের ভেতরে থাকা কেউ কেউ আতঙ্কিত হয়ে পড়তেই পারে। অনেকের এ–সংক্রান্ত ফোবিয়াও থাকে। তা থেকে শারীরিক ও মানসিক অবস্থার অবনতি হওয়াটাও খুবই সম্ভব।

অন্যদিকে লিফটে যান্ত্রিক ত্রুটিও হতেই পারে। যন্ত্র থাকলে বিগড়ে যাবেই মাঝে মাঝে। ঠিকঠাক রক্ষণাবেক্ষণ ব্যবস্থা থাকলে এমন পরিস্থিতি সহজে সামাল দেওয়া সম্ভব। কিন্তু এ দেশের সরকারি হাসপাতালগুলোতে যারা একবারের জন্যও রোগী নিয়ে গেছেন, তাঁরা জানেন সেখানে কী পরিস্থিতি থাকে। নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি, একবার এক প্রিয়জনকে নিয়ে বিভাগীয় মেডিকেল কলেজে ভর্তি করতে হয়েছিল। তিনি বেশ কিছুদিন সেখানে ছিলেন। ছয়তলায় তাঁর অবস্থান ছিল। কিন্তু মানুষের ভিড়ে কোনোভাবেই লিফট ব্যবহার করা সম্ভব হয়নি এই অধমের পক্ষে। সাত দিনে অন্তত অর্ধশতাধিকবার ছয়তলায় ওঠা–নামা করতে হয়েছে। তো এই যখন অবস্থা, তখন লিফটের ওপর কী ধরনের চাপ আসলে পড়ে সরকারি হাসপাতালগুলোতে, সেটি সহজেই অনুমেয়।

কিন্তু একটি হাসপাতালের কর্তৃপক্ষকে আসলে সবদিকেই খেয়াল রাখার এবং সমস্যা হলে তা দ্রুত সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে যেতে হয়। কারণ, গ্রহীতাদের সেবা দেওয়ার জন্য এবং তাদের দায়িত্ব নেওয়ার জন্য তারা দায়বদ্ধ। এক্ষেত্রে দায় চাপানোটা কোনো কাজের কথা নয়। অথচ গাজীপুরের হাসপাতালের ঘটনায় ঠিক সেটিই করা হয়েছে। যারা ঘটনার শিকার হয়েছে, তাদেরকেই দোষী বানানোর চেষ্টা করা হয়েছে। এবং তাও প্রকৃত তদন্তকাজ না করেই। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিজেদের চেষ্টাতেই যে লিফটে আটকে পড়াদের উদ্ধার করতে পারেনি, সেটি দিনের আলোর মতোই স্পষ্ট। ফায়ার সার্ভিসের সদস্যদের সেখানে আসতে হয়েছে। লিফট যদি লাগিয়েই থাকেন, তা নিয়ে সমস্যায় পড়লে সেটার পূর্ণাঙ্গ সমাধানের উপায় কি নিজেদের হাতে থাকা উচিত নয়? নাকি সরকারি ‘মাল’ দরিয়ায় ঢালার মতো করেই চলছিল সব?

ঘটনার শিকারকেই দোষী বানানোটা এই উপমহাদেশের আবহমান সংস্কৃতি হিসেবে দায় এড়ানোর খুবই পুরোনো পন্থা। আর এটি করে মূলত উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টাই চলে। তার আড়ালে আসল কারণটিকে ভুলে থাকার একটি নির্লজ্জ অভ্যাস গড়ে তোলার চেষ্টা করা হয়। এমন কাজটি তখনই করা হয়, যখন গন্ধ শুঁকেই বোঝা যায় ‘ডাল মে কুছ কালা হ্যায়’!

সংবাদমাধ্যম সূত্রেই জানা যায় যে, গত ৪ মে একই হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা জিল্লুর রহমান (৭০) নামের এক রোগী ১২ তলা থেকে পড়ে গিয়ে মারা গেছেন। অর্থাৎ, একটি হাসপাতালে খুবই অল্প সময়ের ব্যবধানে পরপর কিছু অস্বাভাবিক ঘটনা ঘটছে। তদন্তসাপেক্ষে এর সঙ্গে অনেক কিছুর সংশ্লিষ্টতাই হয়তো খুঁজে বের করা যাবে। তবে সেসবের আগেই একদিকে অন্তত অঙ্গুলি নির্দেশ করাই যায়, আর সেটি হলো ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ’ নামের শব্দগুচ্ছ। সাম্প্রতিক ঘটনায় মৃত রোগীর স্বজনদের ধাক্কাধাক্কিকে দায়ী করে যার নতুন উদাহরণ তৈরি করা হলো।

এ ধরনের ঘটনা এ দেশে প্রায় সময়ই ঘটছে। নিয়মিত বিরতিতে এভাবে ঘটেই যাওয়ার মূল কারণ হলো, এসব ক্ষেত্রে আদতে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার কথা খুব একটা শোনা যায় না। সেই কারণে অঘটনের পুণরাবৃত্তি ঘটতেই থাকে। কারণ দোষ চাপানোর জন্য ঘাড় যে রয়েছে এন্তার, সব দোষ ওতেই চাপিয়ে পার পাওয়া যায় কিনা!

লেখক: উপবার্তা সম্পাদক, ডিজিটাল বিভাগ, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন লিমিটেড

আহমেদ রুবেলকে নিয়ে অনেক ভাবনাই ঘুরেফিরে আসে। তার মধ্যে একটি হলো—কেন এই জাঁদরেল অভিনেতাকে পুরোপুরি ব্যবহার করা হলো না? আবার প্রশ্নটা ঘুরিয়ে এভাবেও করা যায়, তাঁর মতো ইনফ্লুয়েনশিয়াল‌ বা মোর দ্যান...
গবেষকেরা বলছেন, ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে যেসব অ্যান্টিবায়োটিক সবচেয়ে প্রচলিত, তেমন ১০টি অ্যান্টিবায়োটিকে আশানুরূপ ফল মিলছে না। এর মধ্যে অ্যামোক্সাসিলিন ও সিপ্রোফ্লক্সাসিন কাজ করছে না ৯৭ ভাগ...
চায়ের কাপ থেকে বাসা-বাড়ির জগ – সবখানেই মলবাহিত জীবানুর দখলদারিত্ব সুনিশ্চিত হয়েছে। না জেনেই এসব দূষিত পানি পান করা ও দৈনন্দিন কাজে ব্যবহার করছি আমরা। এরপর অসুস্থ হচ্ছি। হয়তো অনেকের প্রাণও যাচ্ছে।...
ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করতে আবেদন জানিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) চিফ প্রসিকিউটর। এ ছাড়া ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র গোষ্ঠী...
সপ্তাহের দ্বিতীয় কর্যদিবসেও সূচক কমেছে দুই স্টক এক্সচেঞ্জে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স কমেছে ৩৭ পয়েন্ট। এই নিয়ে গত ছয় কার্যদিবসে ঢাকার শেয়ারবাজারে সূচক কমলো ২৭৩ পয়েন্ট।...
লোডিং...

এলাকার খবর

 
By clicking ”Accept”, you agree to the storing of cookies on your device to enhance site navigation, analyze site usage, and improve marketing.